চলমান শিক্ষা ব্যবস্থায় ঢাবির ৭ কলেজ

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

প্রলয় পাল :-

শিক্ষা জাতির মেরুদণ্ড। আর একটি শিক্ষিত জাতিই গড়ে তুলতে পারে দারিদ্র্যমুক্ত দেশ।

সে ধারণাকে অব্যাহত রাখতে ২০১৭ সালে প্রাচ্যর অক্সফোর্ড বলে খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত করা ঢাকায় স্বনামধন্য ৭ টি সরকারি কলেজকে।যা সাধারণত “ঢাবি-৭কলেজ” নামেই বাংলাদেশে পরিচয় লাভ করে।কিন্তু অধিভুক্ত হবার পর থেকেই দেখা দেয় নানা জটিলতা।

যার অধিকাংশ সমস্যাই এখন সমাধান করা হয়েছে। আমরা জানি, একটি শিক্ষিত জাতি গড়ে তুলতে প্রথম হাতিয়ার অভিজ্ঞ শিক্ষক, নিয়মিত ক্লাস ও পরীক্ষা। যার প্রতিটি অংশে রয়েছে ঘাটতির প্রতিফলন। যা বিশেষ ভাবে পরিলক্ষিত হচ্ছে “ঢাবি-৭কলেজ”।

ঢাবি-৭কলেজ এর প্রতিটি অংশই নিয়ন্ত্রণ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। কিন্তু প্রায়ই দেখা যাচ্ছে অধিক পড়াশোনা করেও আশানুরূপ সাফল্য না পাওয়া। এর প্রধান কারণ অভিজ্ঞতা সম্পন্ন শিক্ষক সংকট ও নিয়মিত ক্লাস পরীক্ষা না হওয়া। যার ফলে, ছাএ ছাএীদের মধ্যে অসন্তোষ প্রকাশ বেড়েই চলেছে।

কিন্তু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও ৭কলেজ কতৃপক্ষ এক্ষেএে একধরনের নিরবতাই পালন করছে।কিন্তু এর ভুক্তভোগী হতে হচ্ছে ৭কলেজের শিক্ষার্থীদের।তাছাড়া বতমানে দেখা যাচ্ছে, “World university ranking ” এ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান প্রায় নেই বললেই চলে।

যদি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও ঢাবি -৭কলেজ এর শিক্ষা সংকট দূরীভূত না করা হয় তবে বাংলাদেশ এক সময় তীব্র শিক্ষা সংকটে পতিত হবে যার সুদূরপ্রসারী ফলাফল খুবই ভয়ানক হবে।

এখনই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উচিত ৭ কলেজের উল্লেখিত সমস্যাকে সমাধান করে বাংলাদেশকে আরও এগিয়ে নেওয়া এবং শিক্ষিত ও বেকার মুক্ত বাংলাদেশ গড়ে তুলতে সাহায্য করা।

লেখক -প্রলয় পাল।রসায়ন বিভাগ। ঢাবি -৭কলেজ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *