বিনামূল্যে চোখের চিকিৎসা চালিয়ে যাচ্ছে মেয়র হানিফ ফাউন্ডেশন

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ডেমরার মাতুয়াইলের ৬০ বছরের বৃদ্ধা রাহেলা খাতুন। বছর পাঁচেক আগে থেকেই দুই চোখে তেমন একটা দেখতে পান না। টাকার অভাবে মায়ের চোখের চিকিৎসা করাতে পারেননি রিকশা চালক ছেলে। ফলে নাতি-নাতনির সহযোগিতায় ঘরে-বাইরে যেতেন তিনি।

রোববার (২০ ডিসেম্বর) সকালে জানতে পারেন রাজধানীর ডেমরার মাতুয়াইল দক্ষিণপাড়ায় বিনামূল্যে চোখের চিকিৎসা, ওষুধ ও চশমা বিতরণ করছে মেয়র মোহাম্মদ হানিফ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন। এমন খবরে নাতনি ফারজানাকে নিয়ে ছুটে যান তিনি।

চিকিৎসা শেষে হাসি মুখে রাহেলা বলেন, ‘এতদিন টাকার অভাবে ডাক্তার দেখাতে পারিনি। এখন বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা, ওষুধ এবং চশমা পেয়েছি। চোখে কিছুটা দেখতে পাচ্ছি।’

তবে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, রাহেলার দুই চোখে ছানি পড়েছে। শিগগির ঢাকার একটি উন্নতমানের হাসপাতালে বিনামূল্যে তার অপারেশন করা হবে। রাহেলা তার দৃষ্টিশক্তি ফিরে পাবে।

রোববার সকাল ১০টা থেকে বিকেল পর্যন্ত রাহেলার মতো এমন দুই শতাধিক মানুষকে বিনামূল্যে চিকিৎসা, ওষুধ ও চশমা দিয়েছে মেয়র মোহাম্মদ হানিফ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন।

ঢাকা সিটি করপোরেশনের প্রথম নির্বাচিত মেয়র মোহাম্মদ হানিফের চতুর্দশ মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ওই ‘চক্ষু চিকিৎসা সেবা ক্যাম্পের’ আয়োজন করে সংগঠনটি।

গত ১৫ নভেম্বর লালবাগের শহীদ নগর থেকে তাদের ওই ক্যাম্পের কার্যক্রম শুরু হয়। পরে ক্রমান্বয়ে হাজারীবাগ, খিলগাঁও, বংশালের সুরিটোলা, পোস্তগোলা এলাকায় চিকিৎসা ক্যাম্প পরিচালিত হয়।

তারা চোখ দিয়ে পানি পড়া, পুঁজ পড়া বা ময়লা আসা, চোখ চুলকানো, মাথা ব্যাথা, চোখ ব্যথা, চোখ জ্বালা-পোড়া, চোখ লাল হয়ে যাওয়া, নেত্রনালী পরিষ্কার, কাছে ও দূরে কম দেখাসহ বিভিন্ন ধরনের রোগের চিকিৎসা দিয়েছেন।

এই চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম পরিচালনায় সমন্বয়ক হিসেবে কাজ করছেন মো. সাজেদ বেপারী।

তিনি জানান, তারা এখন পর্যন্ত প্রায় এক হাজার ৪০০ জন রোগীকে চিকিৎসা দিয়েছেন। এর মধ্যে ২১৯ জনের চোখে ছানি পড়েছে।

বিনামূল্যে তাদের প্রত্যেকের চোখের ছানি অপারেশন করা হবে। এতে তাদের চোখে-মুখে হাসি ফুটবে।

মাতুয়াইল দক্ষিণপাড়ার ঈদগা মাঠ সংলগ্ন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ৬৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কার্যালয়। দেখা যায়, ওই কার্যালয়ের ভেতরে বড় একটি কক্ষে চিকিৎসা সেবা দিচ্ছেন চারজন চিকিৎসক। বিভিন্ন এলাকার লোকজন সেখানে চিকিৎসার জন্য যাচ্ছেন। সিরিয়াল দিয়ে সুশৃঙ্খলভাবে সেবা নিচ্ছেন তারা।

ঘুরে ঘুরে চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম তদারকি করছেন মেয়র মোহাম্মদ হানিফ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের ভাইস চেয়ারম্যান মো. ওমর আলী এবং ৬৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. সামসুদ্দিন ভূঁইয়া। তাদের এমন আন্তরিকতা এবং চিকিৎসা সেবা পেয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন রোগীরা।

গত তিনদিন ধরে দুই চোখ দিয়ে পানি পড়ে কলেজ পড়ুয়া তানভীর রহমানের। এতে তার চোখ দুটা লাল হয়ে গেছে। তানভীর বলেন, ‘হঠাৎ করে ঘুম থেকে উঠে দেখি চোখ লাল, জ্বালা পোড়া করে। কিন্তু কেন এমন হলো তা বুঝতে পারছি না। তাই এখানে চিকিৎসা নিতে এসেছি।’

চিকিৎসা সেবা নিয়ে মাতুয়াইল দক্ষিণপাড়ার বাড়ি ফিরছিলেন ফুটপাতের চা দোকানি সিরাজুল ইসলাম (৫৫)। তিনি বলেন, ‘বেশকিছু দিন ধরে দূরে কম দেখি। রোদে গেলে চোখ জ্বালা-পোড়া করে।

কিন্তু কোন হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য যাব তা বুঝতে পারছিলাম না। পকেটেও পর্যাপ্ত টাকা ছিল না। তাই খবর পেয়ে এখানে ছুটে এসেছি।’

সিরাজুল বলেন, চিকিৎসকেরা খুবই আন্তরিকভাবে চিকিৎসা দিয়েছেন। সঙ্গে একটা চশমাও দিয়েছেন। এমন মহানুভবতা দেখে অবাক হয়েছি।

মেয়র মোহাম্মদ হানিফ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের কল্যাণ কামনা করছি।’

রাজধানীর কেয়ার অ্যান্ড ফ্যাকো সেন্টারের চিকিৎসক মো. আব্দুস সবুর এই চিকিৎসা সেবা ক্যাম্পের সঙ্গে রয়েছেন। তিনি জানান, তারা বিনামূল্যে চশমা পরীক্ষা, নেত্রনালী (টিউবসহ) অপারেশন, মাংস বৃদ্ধি (গ্রাফটিং) অপারেশন, নেন্ত্রনালী (এসপিটি) পরীক্ষা এবং ব্যথামুক্তভাবে সেলাইবিহীন পদ্ধতিতে লেন্স সংযোজন ইত্যাদি কাজ করে থাকেন।

এর মধ্যে যাদের অপারেশনের দরকার হয়, তাদের নাম-ঠিকানা আলাদাভাবে লিখে রাখা হচ্ছে। শিগগির তাদের অপারেশনের ব্যবস্থা করা হবে।’

মেয়র মোহাম্মদ হানিফ মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের ভাইস চেয়ারম্যান মো. ওমর আলী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ সহচর ও স্নেহভাজন ছিলেন মেয়র মোহাম্মদ হানিফ।

তার জীবন কেটেছে মানবসেবায়। এখন তার সুযোগ্য সন্তান ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র সাঈদ খোকনের নেতৃত্বে সেই কাজটি চালিয়ে যাচ্ছে ওই মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন। এই মানবসেবার মাধ্যমে মরহুম হানিফের আত্মা শান্তি পাবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *