করোনার কারণে আগামি দুই এক দিনের মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের ঘোষণা আসতে পারে

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শিক্ষার্থীদের প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস থেকে নিরাপদে রাখতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের চিন্তাভাবনা করছে সরকার। এ বিষয়ে সরকারের উচ্চপর্যায়ে আলাপ-আলোচনা হলেও এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে পৌঁছতে পারেননি সংশ্লিষ্টরা।

তবে আগামী দু-তিনদিনের মধ্যে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে দেশের সব স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধের ঘোষণা আসতে পারে।

করোনাভাইরাসের প্রভাব সম্পর্কে জাতীয় পর্যায়ে বিশেষজ্ঞ প্রতিষ্ঠান আইইডিসিআরের মতামত অনুযায়ী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের মতো পরিস্থিত এখনও তৈরি হয়নি। তবে শিক্ষা মন্ত্রণালয় বিশেষজ্ঞদের মতামতের ভিত্তিতে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে— এমনটি জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের এক অতিরিক্ত সচিব শনিবার বলেন, যেকোনো ভাবেই শিক্ষার্থীদের করোনাভাইরাস থেকে নিরাপদে রাখা হবে। এজন্য যদি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করতে হয় তা-ও করা হবে।

তিনি বলেন, বর্তমানে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ কর মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়নি। এরপরও একধরনের ঝুঁকি থেকে যাচ্ছে।

অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কমে যাচ্ছে। ঝুঁকি এড়াতে সাময়িকভাবে ঢাকা সিটি করপোরেশন এলাকার সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের চিন্তাভাবনা চলছে। আগামী দু-তিনদিনের মধ্যে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন শনিবার বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের বিষয়ে চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে করোনাভাইরাস থেকে আমাদের শিক্ষার্থীদের নিরাপদে রাখতে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রচার-প্রচারণা শুরু হয়েছে।

শিক্ষকদের মাধ্যমে অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে এ ভাইরাস সম্পর্কে সচেতন করা হচ্ছে। আতঙ্ক না ছড়িয়ে সবাইকে সচেতন করে তুলতে শিক্ষকদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

‘যেহেতু এখনও জরুরি পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়নি, তেমন পরিস্থিতি হলে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হবে। শিক্ষার্থীদের কীভাবে আরও বেশি নিরাপত্তা নিশ্চিত করা যায় সে বিষয়েও চিন্তাভাবনা চলছে।

করোনাভাইরাসকে ইতোমধ্যে বৈশ্বিক মহামারি হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। সারাবিশ্বের ১২০টিরও বেশি দেশ ও অঞ্চলে এ ভাইরাসের সংক্রমণ দেখা দিয়েছে। মৃতের সংখ্যা পাঁচ হাজার ৪৩৬। আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দেড় লাখের কাছাকাছি।

ইতোমধ্যে বাংলাদেশে তিনজন করোনায় আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা হয়। তিনজনই বর্তমানে সুস্থ। দুজন বাড়ি ফিরে গেছেন। অর্থাৎ বর্তমানে বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কোনো রোগী নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *